Breaking News

Ace tablet

Ace tablet 500mg: (Paracetamol)

নির্দেশনা: (চিকিৎসকের পরামর্শ মোতাবেক ঔষধ সেবন করুন)

এইস্ জ্বর, সর্দি জ্বর, ইনফ্লুয়েঞ্জা, মাথা ব্যথা, দাঁতে ব্যথা, কানে ব্যথা, শরীর ব্যথা, স্নায়ু প্রদাহজনিত ব্যথা, ঋতুস্রাবজনিত ব্যথা, মচকে যাওয়া ব্যথা, অন্ত্রে ব্যথা, পিঠে ব্যথা, অস্ত্রোপচার পরবর্তী ব্যথা, প্রসব পরবর্তী ব্যথা, প্রদাহজনিত ব্যথা এবং শিশুদের টিকা পরবর্তী ব্যথায় কার্যকরী। এটি বাতজনিত ও অস্টিওআর্থাইটিসজনিত ব্যথা এবং অস্থিসংযোগ সমূহের অনমনীয়তায় কার্যকরী।

Ace tablet
Ace tablet

ফার্মাকোলজি:

প্যারাসিটামলের ব্যথানাশক এবং জ্বর উপশমক গুণাবলীর সাথে কিছুটা প্রদাহবিরোধী কার্যকারিতাও রয়েছে। প্যারাসিটামল (অ্যাসিটামিনোফেন) প্রাথমিকভাবে সিএনএসে কাজ করে বলে মনে করা হয়, ইহা প্রোস্টাগ্ল্যান্ডিন এর সিনথেসিস কে ইনহিবিট করার মাধ্যমে COX-1, COX-2, and COX-3 এনজাইম এর সিনথেসিস কে ইনহিবিট করে। প্যারাসিটামল একটি প্যারা এমিনোফেনল ডেরিভেটিভ, যার ব্যথানাশক এবং জ্বর উপশমক গুণাবলীর সাথে কিছুটা প্রদাহ বিরোধী কার্যকারিতা রয়েছে। প্যারাসিটামল সর্বাপেক্ষা বেশি ব্যবহৃত এবং সর্বাপেক্ষা নিরাপদ ও দ্রুত কার্যকরী ব্যথানাশকদের একটি। এটি অধিক সহনশীল ও এসপিরিনজনিত অনেক পার্শ্ব প্রতিক্রিয়ামুক্ত।

 

মাত্রা ও সেবনবিধি:

ট্যাবলেট :

প্রাপ্ত বয়স্ক: ১-২ টি ট্যাবলেট ৪-৬ ঘন্টা পর পর দিনে সর্বোচ্চ ৮ টি ট্যাবলেট।

শিশু (৬-১২ বছর): আধা থেকে ১টি দিনে ৩-৪ বার।

সিরাপ এবং সাসপেনশন :

শিশু (৩ মাসের নীচে): ১০ মি.গ্রা. হিসাবে (জন্ডিস থাকলে ৫ মি.গ্রা. হিসাবে) দিনে ৩-৪ বার।

৩ মাস-১ বছরের নীচে: ১/২ থেকে ১ চা চামচ দিনে ৩-৪ বার। ■

১-৫ বছর: ১-২ চা চামচ দিনে ৩-৪ বার।

 ৬-১২ বছর: ২-৪ চা চামচ দিনে ৩-৪ বার।

প্রাপ্তবয়স্ক: ৪-৮ চা চামচ দিনে ৩-৪ বার।

এক্স আর ট্যাবলেট :

প্রাপ্ত বয়স্ক এবং ১২ বছরের ঊর্ধ্বে শিশুদের ক্ষেত্রে: ২টি ট্যাবলেট প্রতি ৮ ঘন্টা পরপর; সর্বোচ্চ মাত্রা দৈনিক ৪ গ্রাম (৬ টি ট্যাবলেট)। · দীর্ঘ মেয়াদী ক্রমাগত চিকিৎসার ক্ষেত্রে:দিনে ২.৬ গ্রাম (৪টি ট্যাবলেট)-এর বেশি সেবন করা উচিত নয়।

সাপোজিটরি : ৩ মাস- ১ বছরের নীচে: ৬০-১২০ মি.গ্রা. দিনে ৪ বার।

 ১-৫ বছর: ১২৫-২৫০ মি.গ্রা. দিনে ৪ বার।

৬-১২ বছর বয়সের শিশুদের জন্য: ২৫০-৫০০ মি.গ্রা. দিনে ৪ বার।

প্রাপ্ত বয়স্ক ও ১২ বছরের বেশী বয়সের শিশুদের জন্য: ০.৫-১ গ্রাম দিনে ৪ বার।

পেডিয়াট্রিক ড্রপস্: ৩ মাস বয়স পর্যন্ত: ০.৫ মি.লি. (৪০ মি.গ্রা.), দিনে ৪ বার।

৪-১১ মাস বয়স পর্যন্ত: ১ মি.লি. (৮০ মি.গ্রা.), দিনে ৪ বার। 

১-২ বছর বয়স পর্যন্ত: ১.৫ মি.লি. (১২০ মি.গ্রা.), দিনে ৪ বার।

ঔষধের মিথষ্ক্রিয়া: বারবিচুরেট জাতীয় ও বিষণ্নতারোধী ট্রাইসাইক্লিক জাতীয় ঔষধ গ্রহণকারী এবং এলকোহল পানকারী রোগীদের ক্ষেত্রে অধিকমাত্রায় সেবন করলে এইসূরে বিপাক কমে যেতে পারে। এলকোহল, মাত্রাধিকভাবে সেবন কৃত এইস্ দ্বারা সৃষ্ট লিভারের বিষক্রিয়া আরো বাড়িয়ে দিতে পারে। খিচুনিবিরোধী ঔষধ এবং স্টেরয়েডজাতীয় জন্মনিরোধকের দীর্ঘ মেয়াদী ব্যবহার লিভার এনজাইমকে প্রণোদিত করে; ফলে এ জাতীয় ঔষধের সাথে একত্রে গ্রহণে ‘ফার্স্ট-পাস’ বিপাক ত্বরান্বিত হয় এবং এইরে কার্যকরী মাত্রা অর্জন ব্যহত হয়।

প্রতিনির্দেশনা: প্যারাসিটামল বা এটির কোন উপাদানের প্রতি অতিসংবেদনশীল রোগীদের ক্ষেত্রে ইহা প্রতিনির্দেশিত।

পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া:  রক্তের উপাদানের উপর যৎসামান্য প্রভাব থাকলেও সাধারণত এইস্ ের পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া খুবই কম। কিছু কিছু ক্ষেত্রে অগ্নাশয়ের প্রদাহ, চামড়ায় ফুসকুড়ি ও অন্যান্য এলার্জি দেখা দিতে পারে।

গর্ভাবস্থায় ও স্তন্যদানকালে: মানব গর্ভাবস্থায় এপিডেমিওলজিকাল গবেষণায় প্রস্তাবিত মাত্রায় প্যারাসিটামল ব্যবহার করার কারণে কোনো খারাপ প্রভাব দেখা যায়নি, তবে রোগীদের উচিত তাদের ডাক্তারের পরামর্শ মেনে চলা। প্যারাসিটামল বুকের দুধে নির্গত হয়, কিন্তু চিকিৎসাগতভাবে উল্লেখযোগ্য পরিমাণে নয়। উপলব্ধ প্রকাশিত ডেটা স্তন্যপান করানোর প্রতি বিরোধিতা করে না।

সতর্কতা: গুরুতর কিডনি বা গুরুতর হেপাটিক বৈকল্যযুক্ত রোগীদের এইস্ ব্যবহারে যত্ন নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। যারা নন-সিরোটিক অ্যালকোহলযুক্ত লিভার রোগে আক্রান্ত তাদের ওভারডোজের ঝুঁকি বেশি। নির্ধারিত মাত্রা অতিক্রম করা যাবে না। রোগীদের একই সাথে অন্যান্য এইস্যুক্ত পণ্য বর্জন করা উচিত। এইস্ শুধুমাত্র সেই রোগীর দ্বারা ব্যবহার করা উচিত যার জন্য এটি নির্ধারিত হয়।

মাত্রাধিকাজ:

যারা ১০ গ্রাম বা তার বেশি এইস্ গ্রহণ করেছেন তাদের যকৃতের ক্ষতি হতে পারে। ৫ গ্রাম বা তার বেশি এইস্ গ্রহণ করলে লিভারের ক্ষতি হতে পারে যদি রোগীর নিম্নোক্ত ঝুঁকির কারণ থাকে: রোগী যদি কার্বামাজেপাইন, ফেনোবারবিটোন, ফেনাইটোইন, প্রিমডোন, রিফাম্পিসিন, সেন্ট জনস ওয়ার্ট বা লিভারের এনজাইমগুলিকে প্ররোচিত করে এমন অন্যান্য ওষুধ দিয়ে দীর্ঘমেয়াদী চিকিত্সা করা হয়, বা নিয়মিতভাবে সুপারিশকৃত পরিমাণের চেয়ে বেশি ইথানল সেবন করলে বা গ্লুটাথিয়নের ক্ষয় হতে পারে যেমন খাওয়ার ব্যাধি, সিস্টিক ফাইব্রোসিস, এইচআইভি সংক্রমণ, অনাহার, ক্যাচেক্সিয়া। লক্ষণ: প্রথম ২৪ ঘন্টার মধ্যে এইস্ ওভারডোজের লক্ষণগুলি হল ফ্যাকাশে, বমি বমি ভাব, বমি, ক্ষুধামন্দা এবং পেটে ব্যথা। খাওয়ার ১২ থেকে ৪৮ ঘন্টা পরে লিভারের ক্ষতি স্পষ্ট হতে পারে। গ্লুকোজ বিপাক এবং বিপাকীয় অ্যাসিডোসিসের অস্বাভাবিকতা ঘটতে পারে। গুরুতর বিষক্রিয়ায়, হেপাটিক ফেইলর এনসেফালোপ্যাথি, রক্তক্ষরণ, হাইপোগ্লাইসেমিয়া, সেরিব্রাল শোথ এবং মৃত্যুর দিকে অগ্রসর হতে পারে। তীব্র টিউবুলার নেক্রোসিসের সাথে তীব্র রেনাল ফেইলর, কটি ব্যথা, হেমাটুরিয়া এবং প্রোটিনুরিয়া দ্বারা জোরালোভাবে প্রস্তাবিত, এমনকি গুরুতর লিভারের ক্ষতির অনুপস্থিতিতেও বিকাশ হতে পারে। কার্ডিয়াক অ্যারিথমিয়াস এবং প্যানক্রিয়াটাইটিস রিপোর্ট করা হয়েছে। এইস্ ওভারডোজের ব্যবস্থাপনায় তাৎক্ষণিক চিকিৎসা অপরিহার্য। সক্রিয় কাঠকয়লা দিয়ে চিকিত্সা বিবেচনা করা উচিত যদি ১ ঘন্টার মধ্যে ওভারডোজ নেওয়া হয়। প্লাজমা এই ের ঘনত্ব পরিমাপ করা উচিত ৪ ঘন্টা বা তার পরে খাওয়ার পরে (আগের ঘনত্ব অবিশ্বস্ত ছিল)। এইস্ গ্রহণের ২৪ ঘন্টা পর্যন্ত N-acetylcysteine দিয়ে চিকিত্সা ব্যবহার করা যেতে পারে। যাইহোক, সর্বোচ্চ প্রতিরক্ষামূলক প্রভাব ৪ ঘন্টা পরে খাওয়ার পরে পাওয়া যায়। এই সময়ের পরে প্রতিষেধকের কার্যকারিতা দ্রুত হ্রাস পায়। প্রয়োজনে রোগীকে নির্ধারিত ডোজ সময়সূচীর সাথে সঙ্গতি রেখে শিরায় এন-এসিটাইলসিস্টাইন দেওয়া উচিত। যদি বমি সমস্যা না হয় তবে দুর্গম এলাকায়, হাসপাতালের বাইরে মৌখিক মেথিওনিন একটি উপযুক্ত বিকল্প হতে পারে। ইনজেশনের ২৪ ঘন্টার পরে গুরুতর হেপাটিক ডিসফাংশন সহ রোগীদের পরিচালনার বিষয়ে NPIS বা লিভার ইউনিটের সাথে আলোচনা করা উচিত।

থেরাপিউটিক ক্লাস: Non opioid analgesics

সংরক্ষণ: আলো ও তাপ থেকে দূরে শুষ্ক স্থানে রাখুন। শিশুদের নাগালের বাইরে রাখুন।

About electrohelpcare

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *